রহমান হেনরী, দেবাশীষ দাশ, অনুপ দত্ত ও কামরুল ইসলামের কবিতা

অতিথি লেখক

রহমান হেনরী, দেবাশীষ দাশ, অনুপ দক্ক ও কামরুল ইসলামের কবিতা

011

রহমান হেনরী
।। লীলামাঠের হরিণী ।।
‘সময় বিপক্ষে যাচ্ছে’__
এইটুকু বলে
লীলামাঠের হরিণী
নিথরাশ্রমে ঢলে
পড়ে। অথচ এ কৈশোরান্ত জলে
তোমার থরোষ্ণ হাত
আজও তো আমার করতলে
কম্পমান, এতোকাল দোল খাচ্ছে,
লক্ষই করিনি!
আজ অকস্মাৎ
মনে হলো, তোমাকে আবার একটু খুঁজি!
অন্ধকারে জেগে উঠলো মায়া
বস্তুকল্পে বাধলো সংঘাত
কোথায় তোমার মুখচ্ছায়া?
হাতের ভেতরে গলে হাত
নদী ও সমুদ্রের জন্মদাত্রী হয়ে উঠলো বুঝি!
রাইনার মারিয়া রিলকে’র কবিতা
।। হে অন্ধকার, তোমাকে ।।
হে অন্ধকার, তুমি সেই, যা থেকে উদ্ভূত অামি
পৃথিবীকে বেড়ার মতো ঘিরে রেখেছে যা,
সেইসব অগ্নির চেয়ে বেশি ভালোবাসি তোমাকেই
কেননা অগ্নিই প্রত্যেককে ঘিরে তৈরি করছে জ্যোতির্বলয়
আর তার বাইরে এসে কেউ-ই শিখছে না আগুনকে।
অথচ অন্ধকার সবকিছুকেই টানছে তার গর্ভে__
অবয়বগুলোকে আর সমুদয় অগ্নিকে, প্রাণীদের এবং আমাকেও,
কতই না অনায়াসে সে সমবেত করছে এই সবকিছুকে!__
ক্ষমতাকে আর জনতাকেও__
আর এটাই সম্ভব যে মহান এক উপস্থিতি নিকটবর্তী হচ্ছে আমার।
আমার আস্থা রয়েছে রাত্রিতে।

Kamrul-islam

আমি খুঁজে ফিরি ~~~
~~~ কামরুল ইসলাম
~~~~~~~~~~~~~~
নবীণা
আজ কাল আর কবিতায় মন বসে না
বৃষ্টি এলে বসি না বারান্দায়
জিভ পুড়া চায়ের কাপে রাখি না চুমু
সব কিছুতে অস্থির প্রায়
নি:সংগতার কৃষ্ণ অভিসারী যেন ।
নবীণা
শুনেছি আজ কাল তুমি কবিতার আসরে যাও
সবুজ গালিচায় বসে আবৃতি কর
” তুমি মোর বাতায়ন তলে
একবার এসে দেখ হে প্রিয়
তব অনুরাগে কত সারা মোর
স্বপ্ন আর ভাবনায় ভাবনীয় ” ।
নবীণা
সেই কবে তোমার আবৃতি শুনেছি
বৃষ্টি মুখর সন্ধ্যা
আধো আলো আধো আঁধারে
দখিনা উষ্ণ বাতাসে ভেসে যাওয়ার মত
সুরেলা সেই কন্ঠে ।
নবীনা
আমার ভাবনা গুলো আজ বিলীন হয়েছে
পুর্ণতায় কিংবা অপুর্ণতায়
ইচ্ছে করলেই আর পারি না
দু লাইন ছন্দ মিলাতে
বিষন্ন লাগে, কস্ট হয় ।
নবীনা
হয়তো তোমারই মত ছেড়েছে আমায়
আমার কবিতার সব আয়োজন
পরম একাকিত্বের চরম লগনে
আমি খুজে ফিরি প্রতিনিয়ত
নগ্ন পায়ে শিউলী কুড়ানো
আমার নবীণা, আমার কবিতা ।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

debashis-das

জীবন তরী
দে বা শী ষ দা শঅন্তিম সূর্যেও পথ চেয়ে আছি
আজও অপেক্ষায় খেয়া ঘাটে পড়ে আছি ।
মায়ার সংসার শেষে ফিরে ফিরে শুধু আসি
চোখের জল শুকিয়ে আজি
ক্লান্ত দেহে পড়ে আছি
ঘুমের ঘুরে স্বপ্নে বিভোর
তবুও শুনি বাজিছে একি মধুর সুর ।
পাড়ায় পাড়ায় বাজিছে আযানের সুমধুর ধ্বনি
দলে দলে মানুষ ছুটিছে মসজিদের পরে ।
কল্পনায় সবাই শ্রান্তিহারা
হৃদয় তাঁদের সুপ্তিভরা ।
লাই –লাহা ইল্লাল্লাহু মুহাম্মাদুর রাছুলাল্লাহ বলে
এসো এসো তুমি এসো
এসো তুমি তোমার জীবন তরী বেয়ে ।
ইউ নাই টেড কিং ড ম ।
১৮/০৪/১৪ ইং ।

033

কি এক পিছুটানে
অনুপ দত্ত
__
কি এক পিছুটান রেখে গেছ
ফিরে আসতে হয় বার বার৷
পথের সীমানা তো হয় না শেষ
সঙ্গে চমকি বিদ্যুৎ না দেখা ভার৷
কত কি চলে আসে,কত কি চলে যায়
কতকিছু পিছুটান ভেসে যায় শুন্যতায়৷
পাপের পাথরে হয়তো বা মায়া কাটে
কিছুটা পিছুটান আদর পায় পুন্যতায়৷
ছুটে যেতে হয় যেন অন্ধ গতি সুখ
সমস্ত ইচ্ছারা পোড়ে ঘর্ষনে৷
পিছুটান তবু একশা ভিজিয়ে দেয়
একান্ত কান্নার প্রতুল বর্ষনে৷
তোমার জানার অজানা তো কিছু নেই
কেন মৃত্যু দাও এ ভাবে নিত্যদিন৷
আমার বাঁচা তো পিছুটান ঘিরে
পিছুটান নিয়ে চেয়েছি এক মৃত্যুহীন৷
রেষ্টরুম/থানে/০৮/০৫/২০১৪/সকাল-৭টা

Print Friendly