মোকসেদুল ইসলামের তিনটি কবিতা

মোকসেদুল ইসলাম

যারা মূর্খ তারা আলোকিত হোক
………………………………………………

সবুজ চশমার ফ্রেমে এখন বিরল নিদ্রার ঘোর
তামাদি সভ্যতার ভেতর যার জন্ম তার মুখে সুখের কোরাস ধ্বনি
উনুনে জ্বালিয়ে দাও থেতলানো বোধ, ইস্রাফিলের শিঙা
কুন্ডলি পাকিয়ে উড়ে যাক দখলদারের স্বপ্ন।
বাবুইয়ের জীবন-যাপন প্রণালী যার জানা নেই সে
টেরাকোটার নকশায় খোদাই করে শয়তানি ভোর
পোয়াতি মায়ের মতো অহোরাত্রি দেখে পেটের বিচিত্র কারুকাজ
আঁধারের মোহে মুগ্ধ হয়ে শূন্যতা ওড়াতে ওড়াতে মিশে যায় পিরামিড সভ্যতার যুগে।

মার্জনা করো হে প্রভু,
জ্ঞানহীন পাপসুখ যারা ভোগ করে উলুমুখে
তাদের শরীরে জ্বালিয়ে দাও রাতের সোডিয়াম বাতি।

দুঃখের সাথে যাদের বসবাস
………………………………………

আকাশ উড়তে শিখলেই কমে যায় নদীর নাব্যতা
শূন্যের ভেতর শূন্যকে রাখলেই দোল খায় নির্লিপ্ত সময়
ফসলের দানায় যখন দেখা দেয় অভাবী রাত
কপট আনন্দে হেসে লুটোপুটি খায় অনাহারী দিনের শূন্য থালাটা

আমরা তো ভাই মৃত্তিকার সন্তান
শিমুল তুলোর ভাঁজে রাখা দুঃখের সাথে বাস
বুকের ভিতর পুষে রাখি ধূপের আগুন
বহমান নদী পাড়ি দেই নোঙ্গর ছেঁড়া নায়
দীপাবলির আলোকরেখা আমাদের কাছে লেজকাটা টিকটিকির ন্যায়
কাগুজে নৌকার মতো অকালে ডুবে মরে যতো স্মৃতি-স্বপ্ন
এসব দেখে ধমনীর দীর্ঘশ্বাস আটকে রেখে টিপ্পনী কাটে বয়সী ইঁদুর।

 

বিরতিহীন জীবন
…………………………..

ঘড়ির কাঁটায় দেখি সঙ্গবদ্ধ জীবনের প্রতিচ্ছবি
স্বর্গের লাঙল কাঁধে টিকটিক শব্দে হেঁটে চলে মর্ত্যের ষাঁড়
পৃথিবী যেন একটা বিবর্ণ চারণ ভূমি
প্রতিদিন দেহ থেকে খসে পড়ে হলুদ ঘাস

রাত্রির বিশ্বাস নেই
অবরুদ্ধ বাতাসে কেঁদে মরে বিষণ্ন ছায়া
ডাস্টবিনের আয়নায় ভাসে মরা কুকুরের মুখ
তবুও ঘড়ির কাঁটা ঘুরে বেড়ায় বিরতিহীন।

Print Friendly

About the author

আসল নাম মোঃ মোকসেদুল ইসলাম। ব্লগে লিখি বৈশাখী ঝড় ছদ্দনামে। উত্তরাঞ্চলের এক দুর্ভিক্ষ পীড়িত এলাকায় আমার জন্ম। ছোট বেলা থেকেই বিভিন্ন প্রতিকূল আবহাওয়ার সাথে লড়াই করে বড় হয়েছি। কিন্তু সত্য প্রকাশে একপা পিছুহটি নি। বাঁকা জিনিস কে সোজা করার চেষ্টা করছি নিরন্তর। ক্ষুব্ধ হই তখন যখন কেউ আমার প্রশংসায় পঞ্চমূখ হয়। প্রশংসা অপেক্ষা সমালোচনাই আমার ভালো লাগে। লেখার প্রতি পাগলামীটা ছোটবেলা থেকেই। ঢাকায় এসে জীবন-যুদ্ধে জড়িয়ে পড়াতে মাঝখানে কিছু দিন বিরতি। জীবনের সাথে যুদ্ধ করতে করতেই বিএসএস এবং এমএসএস টা শেষ করেছি। যখন কিছু মনে হয় তখনই লিখতে বসি। খুব বড় মাপের একজন লেখক হওয়ার ইচ্ছা মনে পুষে রাখছি সবসময়। আমার কাছে সত্য চির সুন্দর। কেউ সত্য বন্ধ করার জন্য মুখ বন্ধ করলেও সত্যটা হাতের মাধ্যমে বেরিয়ে আসে অনিচ্ছায়। অন্যায়, অবিচার আর মিথ্যার বিরুদ্ধে বৈশাখী ঝড়ের মতোই আমার তান্ডব চলে অবিরত।