অমর একুশে বইমেলা ও সাহিত্য বাজার নিয়ে কিছু কথা

আরিফ আহমেদ

01সাহিত্য বাজার…..
ছোটবেলা থেকে কলকাতার আনন্দবাজার পত্রিকাটিকে দেখেছি এই বাংলাদেশের পাঠকের মনে জায়গা করে নিতে। সেই থেকে অনেকটা ঈর্ষাকাতর হয়েই আনন্দবাজার -এর মতো কিছু করার ইচ্ছে আমার। সর্বপ্রথম চেষ্টা ছিল ‘সাড়া’ নামের ম্যাগাজিন। বাংলাদেশের প্রথম মডেলিং ম্যাগাজিন নন্দন এবং নাটকের ম্যাগাজিন নাট্যপত্র করতে ব্যর্থ হয়ে বরিশালের সৈয়দ দুলালকে উৎসাহিত করি এ রকম একটি পত্রিকার জন্য। তখন আমি দৈনিক জনকণ্ঠের একজন নিয়মিত সাংস্কৃতিক প্রদায়ক। সৈয়দ দুলাল প্রথমে আকাশলীনা, পরে আনন্দ আকাশ এবং তারও পরে আনন্দলিখন পত্রিকার কাজ নিয়মিত করেন। তবে সেটি হয়ে যায় গতানুগতিক। এ সময় দৈনিক ভোরেরকাগজে প্রথম মঞ্চনাটকের জন্য পৃথক পাতা তৈরিতে প্রয়াত সঞ্জীব চৌধুরীকে অনেকটা বাধ্য করি। যে কারণে মেলায় যুক্ত হয় নাট্যমঞ্চ।
পরবর্তীতে ২০০৭ সালে সাহিত্য বাজার নিয়ে কাজ শুরু। অনেকটা জাতীয় অধ্যাপক প্রফেসর ডাঃ এম আর খান-এর উৎসাহে ও আশ্বাসে আমরা ছুটে যাই রাজশাহীতে। কথা সাহিত্যিক হাসান আজিজুল হকের কাছে, তার ঘরে। তাঁর লিখিত সম্মতি নিয়ে আমরা ছুটে যাই আরো দুজনের কাছে – নাট্যজন নাসিরউদ্দিন ইউসুফ, নাট্যজন সারা যাকের আমাদের উপদেষ্টামণ্ডলী হতে সম্মতি দেন। আমাদের উপদেষ্টারা কেউই কিন্তু শুধু নামসর্বস্থ উপদেষ্টা ছিলেন না। প্রফেসর ডাঃ এম আর খান ছাড়া প্রত্যেকেই নিয়মিত পরামর্শ ও সহযোগিতা দিতেন। ২০০৯ সালের অমর ২১শে বইমেলায় প্রথম লিটলম্যাগ কর্ণারে স্টল পেল সাহিত্য বাজার। এ জন্য সে সময়ের দায়িত্বরত সরকার আমীন -এর কাছে আমাদের অনেক কৃতজ্ঞতা। ২০১০ সালে সাহিত্য বাজার একইসাথে বাংলাদেশের ৪৪টি জেলায় পৌছে যাচ্ছিল নিয়মিত মাসিক হিসেবে। আমাদের খুব আলোচিত বিষয় ছিল জেলায় জেলায় সাহিত্য ও জীবনকথা বিভাগ দুটি।
সাহিত্য বাজারের উপদেষ্টা হাসান আজিজুল হক ও সারা যাকের ছিলেন আমাদের নিয়মিত সমালোচকও। তারা বারবার বলছিলেন সাহিত্য বাজার পূর্ণাঙ্গ হচ্ছে না। এটিকে আরো সুন্দর কর। আরো অনেক কিছু যুক্ত করার আছে। অনুবাদ আর শিশুতোষ, সাহিত্য সংস্কৃতি অঙ্গনের মানুষদের খোঁজখবর দিচ্ছনা কেন?
কিন্তু সুন্দর করতে হলে ছুটতে হবে, ছুটতে হলে যে টাকা লাগে। জনপ্রিয় অভিনেত্রী ও নির্দেশক সারা যাকের তার নিজের পকেট থেকে প্রায় প্রতিসংখ্যার জন্যই ৫ থেকে ৭ হাজার টাকা দিতেন। খুব একটা বিজ্ঞাপন না পাওয়ায় তাই অনিয়মিত হয়ে যায় সাহিত্য বাজার।
একইসময় পত্রিকার সরকারী অনুমোদন বা রেজিষ্ট্রেশন বিষয়ে নোটিশ আসে। সারাদেশে সাহিত্য বাজার তখন বেশ আলোচিত নাম। অনেকটা বাণিজ্যিক ধারায় এর যাত্রা বলে ২০১১ সালের অমর একুশে বইমেলাতে লিটলম্যাগ কর্ণারে সাহিত্য বাজার-এর স্থান দেয়া নিয়ে বিতর্ক শুরু হয় একাডেমী প্রশাসন ও লিটলম্যাগ নেতাদের মধ্যে । এতে করে মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান, পরিচালক ও মেলার সদস্য সচিব, শাহিদা খাতুন এবং প্রিয় মানুষ সরকার আমীন-এর অনুরোধে সাহিত্য বাজার সে বছর স্টল নেয়া থেকে বিরত থাকে ও পরবর্তীতে পূর্ণাঙ্গ এক ইউনিট স্টল সাহিত্য বাজারকে দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেন সয়ং মহাপরিচালক। তাই তিনি কথাও রাখেন, ২০১২ তে সাহিত্য বাজারকে পূর্ণাঙ্গ স্টল দিয়ে। তবে এ মেলায় সাহিত্য বাজারের ক্ষতি হয় প্রায় ত্রিশ হাজার টাকা ও শ্রম। যা সবটাই চাপে উপদেষ্টা প্রফেসর ড. এম আর খান, সারা যাকের ও সহধর্র্মিনী সুলতানা নাজ-এর উপর।

02এদিকে দেখতে দেখতে ৫ বছরে পা রাখে সাহিত্য বাজার। তাই তো ৫ বছরপূর্তী উৎসব করা খুব জরুরী হয়ে পরে। গ্রামীণফোন মিডিয়া প্রধান, বাংলালিংক, সিটিসেলসহ প্রায় সকলের কাছেই ধর্ণা দেয়ার পর গ্রামীণওয়ালারা নিশ্চিত আশ্বাস দেন সাহায্য করবেন। কাজ শুরু হয়। চ্যানেল আই ও ডেইলী স্টার মিডিয়া পার্টনার। এপ্রিলে উৎসব হলো। ৫ দিনের সাহিত্য সম্মেলন  বইমেলা। কিন্তু গ্রামীণফোন কোম্পানী কোনো সহযোগিতাই করল না। উৎসবের মাইকভাড়ার দেয়ার জন্য গোপনে হাতে টাকা গুজে দিলেন সারা যাকের।
এরপর পঙ্গু দশার শুরু।
২০১৩ তে আর বইমেলায় যাওয়া হলো না। সাহিত্য বাজার প্রকাশ বন্ধ। গত বছর জুনে এসে বন্ধু সালাম খোকন, রাশেদ খান ও আরনভ সালামের সহযোগিতায় আমরা সাহিত্য বাজার ডট কম করলাম, সাথে নতুন বিভাগ যুক্ত হলো রাজনীতির জন্য রাজখবর ।
উপদেষ্টা যারা ছিলেন তাদের কাছে অনলাইন বিষয়ে ফোন করে ও এসএমএস দিয়ে জানালাম। আমাদের প্রতিটি মূহুর্তের সবকিছুই তারা জানেন, তবুও খুব একটা সাড়া পেলাম না কারো কাছেই। তাই তাদের নাম আর এখানে (অনলাইন পত্রিকায়) ব্যবহার করাটা যুক্তিসঙ্গত মনে হয়নি। বিশেষ করে রাজখবর বিভাগটিতে নিরপেক্ষভাবেই রাজনীতির সমালোচনা হচ্ছে। তাই আমরা বিপদে পরলেও তাদের বিপদে ফেলতে চাই না।
চলতি বছর ২০১৪ অমর একুশে বইমেলায় স্টল নেয়ার সবখরচ দিতে রাজী হলো বন্ধু সালাম খোকন। ছুটে গেলাম বাংলা একাডেমিতে। মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান আমাকে দেখেই প্রথম বাজার, বাজার বলে মজা করলেন, তারপর জানালেন, যদি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বা বাংলা একাডেমির গেটের বাইরে বইমেলা যায়, তুমি স্টল পাবে।
অনেক আশায় দুটি সপ্তাহ মিরপুর টু বাংলা একাডেমি ঘুরে বেড়াচ্ছি। বাংলা একাডেমির পুকুরের মাছ বিক্রি হল। দেখলাম।েএ সময় মাছ দেখতে দেখতে ডিজি শামসুজ্জামান খান জানালেন, হাঃ তুমি স্টল পাচ্ছ। তবে ভিতরে ১৫০টির বেশি হবে না। তাই হয়ত বাইরেই পাবে। খুশি হলাম। আনন্দের সাথে বন্ধুদের জানালামও।
কিন্তু গত ২৭ জানুয়ারি সন্ধ্যায় মহাপরিচালক জানালেন কমিটি সাহিত্য বাজারকে স্টল দিতে রাজী না, আমি কি করবো?
saba-stallএদিকে এ্ বইমেলাকে ঘীরে অনেক স্বপ্ন আমাদের। আগামী এপ্রিলে সাহিত্য বাজার ৭ম বর্ষ অতিক্রম করবে। ময়মনসিংহের নদের পারে ৭ দিন না হোক ৩ দিনের সাহিত্য সম্মেলন ও বইমেলা করার স্বপ্ন আমাদের। বইমেলা চলাকালে সারাদেশের লেখক পাঠকের সাথে এ বিষয়ে মতবিনিময় হবে। তাদের সাহায্য সহযোগিতায় হয়ত এ বছর কোনো না কোনো ফোন কোম্পানী স্পন্সর নিয়ে এগিয়ে আসবেন। তাহলে আমরাও প্রবর্তণ করবো সাহিত্য বাজার লেখক পুরস্কার ও দরিদ্র গুনীজনকে সহযোগিতা দেয়ার প্রথাটাও। হবে কি?

আমরা ধর্মভীরু। সত্য বলতে কখনো ভীত নই। যার প্রমাণ বাংলা একাডেমি সংক্রান্ত সংবাদে রয়েছে। হয়ত ঐ সংবাদে মুক্তধারা প্রসঙ্গ বা বাণিজ্যকরণ প্রসঙ্গটিই আমাদের স্টল না পাওয়ার অন্যতম কারণ। তবুও আমরা সত্য বলবো-ই।তাই আমরা জানি ও বিশ্বাস করি কোনো মানুষের উপর নয়, আল্লাহর ইচ্ছার উপর আমাদের ভবিষ্যত। হতাশ নই। আশাবাদী আমরা সবাই।

Print Friendly

About the author

ডিসেম্বর ৭১! কৃত্তনখোলার জলে সাঁতার কেটে বেড়ে ওঠা জীবন। ইছামতির তীরঘেষা ভালবাসা ছুঁয়ে যায় গঙ্গার আহ্বানে। সেই টানে কলকাতার বিরাটিতে তিনটি বছর। এদিকে পিতা প্রয়াত আলাউদ্দিন আহমেদ-এর উৎকণ্ঠা আর মা জিন্নাত আরা বেগম-এর চোখের জল, গঙ্গার সম্মোহনী কাটিয়ে তাই ফিরে আসা ঘরে। কিন্তু কৈশরী প্রেম আবার তাড়া করে, তের বছর বয়সে তের বার হারিয়ে যাওয়ার রেকর্ডে যেন বিদ্রোহী কবি নজরুলের অনুসরণ। জীবনানন্দ আর সুকান্তে প্রভাবিত যৌবন আটকে যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আঙ্গিনায় পদার্পন মাত্রই। এখানে আধুনিক হবার চেষ্টায় বড় তারাতারি বদলে যায় জীবন। প্রতিবাদে দেবী আর নিগার নামের দুটি কাব্য সংকলন প্রশ্ন তোলে বিবেকবানের মনে। তার কবিতায়, উচ্চারণ শুদ্ধতা আর কবিত্বের আধুনিকায়নের দাবী তুলে তুলে নেন দীক্ষার ভার প্রয়াত নরেণ বিশ্বাস স্যার। স্যারের পরামর্শে প্রথম আলাপ কবি আসাদ চৌধুরী, মুহাম্মদ নুরুল হুদা এবং তৎকালিন ভাষাতত্ব বিভাগের চেয়ারম্যান ড. রাজীব হুমায়ুন ডেকে পাঠান তাকে। অভিনেতা রাজনীতিবিদ আসাদুজ্জামান নূর, সাংকৃতজন আলী যাকের আর সারা যাকের-এর উৎসাহ উদ্দিপনায় শুরু হয় নতুন পথ চলা। ঢাকা সুবচন, থিয়েটার ইউনিট হয়ে মাযহারুল হক পিন্টুর সাথে নাট্যাভিনয় ইউনিভার্সেল থিয়েটারে। শংকর শাওজাল হাত ধরে শিখান মঞ্চনাটবের রিপোটিংটা। তারই সূত্র ধরে তৈরি হয় দৈনিক ভোরের কাগজের প্রথম মঞ্চপাতা। একইসমেয় দর্শন চাষা সরদার ফজলুল করিম- হাত ধরে নিযে চলেন জীবনদত্তের পাঠশালায়। বলেন- মানুষ হও দাদু ভাই, প্রকৃত মানুষ। সরদার ফজলুল করিমের এ উক্তি ছুঁয়ে যায় হৃদয়। সত্যিকারের মানুষ হবার চেষ্টায় তাই জাতীয় দৈনিক রুপালী, বাংলার বাণী, জনকণ্ঠ, ইত্তেফাক, মুক্তকণ্ঠের প্রদায়ক হয়ে এবং অবশেষে ভোরেরকাগজের প্রতিনিধি নিযুক্ত হয়ে ঘুরে বেড়ান ৬৫টি জেলায়। ছুটে বেড়ান গ্রাম থেকে গ্রামান্তরে। ২০০২ সালে প্রথম চ্যানেল আই-্র সংবাদ বিভাগে স্থির হন বটে, তবে অস্থির চিত্ত এরপর ঘনবদল বেঙ্গল ফাউন্ডেশন, আমাদের সময়, মানবজমিন ও দৈনিক যায়যায়দিন হয়ে এখন আবার বেকার। প্রথম আলো ও চ্যানেল আই আর অভিনেত্রী, নির্দেশক সারা যাকের এর প্রশ্রয়ে ও স্নেহ ছায়ায় আজও বিচরণ তার। একইসাথে চলছে সাহিত্য বাজার নামের পত্রিকা সম্পাদনার কাজ।