বৃষ্টিভেজা মানুষের মিছিল : সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে পৌঁছেছেন খালেদা জিয়া

নিজস্ব প্রতিবেদক, সাহিত্য বাজার

Bnp-swordi-2

বৃষ্টি উপেক্ষা করে নেতা-কর্মিদের ভিড় সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে । ছবি প্রথম আলোর সৌজন্যে রাজা

দিনভর বৃষ্টি উপেক্ষা করেই ২৫ অক্টোবর শুক্রবার জুম্মার নামাজের পরপরই সারাদেশে ১৮ দলীয়জোটের সমাবেশের প্রস্তুতি চলছে। এ লক্ষে বৃষ্টি মাথায় নিয়েই রাজধানীর ভিড় করতে শুরু করেছে বিএনপি নেতা-কর্মীরা। আনুষ্ঠানিকভাবে  বেলা ২টার পরই সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে শুরু হয়েছে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ১৮-দলীয় জোটের সমাবেশ। ঢাকা মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক সাদেক হোসেন খোকার সভাপতিত্বে সমাবেশে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বক্তব্য রাখেন। তিনি বিকেল চারটার দিকে সমাবেশস্থলে পৌঁছেছেন।

এতে বক্তব্য রেখেছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য মাহবুবুর রহমান, আ স ম হান্নান শাহ, জামায়াত নেতা শফিকুল ইসলাম মাসুদ, জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টির সভাপতি (জাগপা) প্রধান শফিউল আলম প্রধান, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান সৈয়দ মো. ইব্রাহিম, বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান (বিজেপি) আন্দালিব রহমান পার্থসহ জোটের শরিক দলের নেতরা।

সোহরাওয়ার্দী উদ্যান, পল্টন ময়দান অথবা নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ের সামনের সড়ক—এই তিনটি স্থানের যেকোনো একটিতে সমাবেশ করার অনুমতি চেয়ে ঈদের আগে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কাছে আবেদন করে বিএনপি। পরে গতকাল বিকেলে ডিএমপি শর্তসাপেক্ষে ১৮ দলীয় জোটকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করার অনুমতি দেয়। এসময় বিএনপি বলছিল, তারা সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে নয়, নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ের সামনেই সমাবেশ করবে। এ নিয়ে নতুন করে কিছুটা উত্তাপ সৃষ্টি হলেও পরে রাত সোয়া ১০টায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সংবাদ সম্মেলন করে জানান, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানেই তাঁরা সমাবেশ করবেন।

ডিএমপি সূত্রে জানা যায়, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাজধানীতে ১০ হাজারের বেশি পুলিশ সদস্য মোতায়েন রয়েছেন।

বৃহস্পতিবার বিকেলে ডিএমপি ১৩টি শর্তে বিরোধী জোটকে সমাবেশ করার অনুমতি দেয়। শর্তের মধ্যে আছে বিকেল পাঁচটার মধ্যে সমাবেশ শেষ করতে হবে। সমাবেশ শুরুর দুই ঘণ্টা আগে থেকে লোকসমাগম করা যাবে না। সমাবেশে দা-কুড়াল-বল্লম, রড, ব্যানার-ফেস্টুন বহনের আড়ালে লাঠি ব্যবহার করা যাবে না।

এদিকে সারা দেশে ১৮-দলীয় জোটের কর্মসূচির কারণে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে পুলিশ-র্যাব। নামানো হয়েছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনার সামনে পুলিশের উপস্থিতি বাড়ানো হয়েছে।

Print Friendly