আমার রাজনৈতিক অপলাপ : মিজানুর রহমান জুয়েল

সাহিত্য বাজার

মিজানুর রহমান জুয়েল :  Pf picsআজব এক দেশে বাস করি আমরা… বাঙ্গালী জাতির চেহারায় যেমন বৈচিত্র… চরিত্র আরও বিচিত্র… রাষ্ট্র, জাতি, ধর্ম, ভাষা প্রতিষ্ঠা করেছি ৭০ বছর আর ৪২ বছর আগে… নিজেদের মধ্যে অবিশ্বাস আর মতভেদের পচা ডোবায় খাবি খাচ্ছি এখনও… সেই সুযোগে দুটি দল আম জনতার পিঠের চামড়া দিয়ে বানানো গণতন্ত্রের ঢোল সমানে পিটিয়ে যাচ্ছে…

আমার প্রথম বক্তব্য হচ্ছে… রাজাকার আলবদরদের এত নৃশংস বর্বরতা সহ্য করে, স্বচক্ষে দেখে তৎকালীন শাসকগন (যারা কেউ কেউ আজও আওয়ামী লীগ সরকারে বসে আছে) স্বাধীনতার পরপরই কেন নেতৃস্থানীয় রাজাকারদের ত্বরিত বিচার করলেন না। যেমন কাদের সিদ্দিকী স্বাধীনতার পরে বহু রাজাকারকে সামনে পাওয়া মাত্র হত্যা করেছে। আমি তাকে আবারও সালাম জানাই… তিনি একমাত্র ব্যাক্তি, যে জাতির জনকের হত্যাকাণ্ডের সশস্র প্রতিবাদ করেছিলেন। (উনাকেই এখন নব্য রাজাকার বলছেন বঙ্গবন্ধু প্রেমিকরা)। আমরা জানি জাতির জনক বেঁচে থাকতেই বহু রাজাকার ভুয়া মুক্তিযুদ্ধের সার্টিফিকেট হাসিল করেছিল। আমাদের আজকের সংঘাতের বীজতো তখনি রোপন করা হয়েছিল…। মুক্তিযুদ্ধের সময় যে ব্যাক্তি স্বতঃস্ফূর্ত পাকিস্তান সরকারের দেয়া দায়িত্ত পালন করেছিলেন, তাকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বানিয়ে যুদ্ধাপরাধের বিচার চলছে, যার সময়ে প্রতিদিন মানুষ গুম হচ্ছে, বিনা বিচারে পুলিশ গুলি করে মানুষ মারছে… তাকেই দেয়া হয়েছে মানবাধিকার রক্ষায় অবদানের জন্য মানবাধিকার পুরস্কার…! লে হালুয়া…!

প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান যেমন রাজাকারদের বাংলাদেশের রাজনীতিতে পুনঃপ্রতিষ্ঠিত করেছিলেন, তেমনি জাতির জনকের কন্যা শেখ হাসিনাকেও রাজনীতিতে পুনঃ প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন। তখন কি শেখ হাসিনা কিংবা আওয়ামী লীগের জাতির জনকের সতীর্থ কোন নেতা একবারও আপত্তি করেছিলেন, যে আলবদর রাজাকারদের সাথে আমরা রাজনীতি করব না?

তারা কি করতে চেয়েছিলেন তা ১৯৮৬, ১৯৯৬ তেই প্রমাণ করেছেন…? আমি ব্যাক্তিগত ভাবে অনেককেই চিনি যাদের এইসব ব্যাপারে ব্যাক্তিগত কোন স্বার্থ নেই বরং আমাদের নতুন প্রজন্মের মধ্যেও বিভেদের রেখা টানা হয়ে গেল…।
জামাত কত খারাপ এই ব্যাপারে বাংলাদেশের ৯৯ভাগ মানুষের ধারনা স্পষ্ট। কিন্তু এই জামাতকেই আজকে যারা কোলে নিয়েছেন এবং পূর্বে যারা কোলে নিয়েছেন দুইপক্ষই ভোটের রাজনীতি করছেন। এই ব্লগার, নাস্তিক, শিবির, ছাগু, ভাদাইম্যা সবই আমাদের পূর্বসুরি নীতিহীন রাজনীতিবিদদের তৈরি। আমাদের নতুন প্রজন্মকে বিভক্ত করে একই খেলা চলছে…।

নতুন প্রজন্মের জন্য সময় এসেছে বিপ্লবের। প্যাকেজ আন্দোলন নয়, যে আন্দলনের মূল শক্তি নতুন প্রজন্ম আর চালাবেন পুরনো নষ্ট রাজনীতিবিদেরা । সে আন্দোলন আমাদের পচা ডোবায় ফেলে শরীর মন নোংরা করা ছাড়া কিছুই দিতে পারবেনা, পারেনি।

আমরা নতুন প্রজন্ম ইদানীং একে অপরকে অশ্লীল, অকথ্য ভাষায় গালাগালি করছে…(বাপ চাচার রাস্তায় হাঁটছে)
তাই আমিও বলছি… “যে বোঝে, সে আমার ভাই। যে বোঝেনা সেও আমার ভাই… আর যে বুইঝাও বোঝে না সে হইল গিয়া শয়তানের বড় ভাই”

(রাজখবর বিভাগের এই মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। এখানে যে কেউ তার রাজনীতি ও দেশ নিয়ে ভাবনা লিখতে পারবেন।)

Print Friendly